জেনারেটরে ঝুঁকি কি কি? বয়লারের ঝুঁকি সমুহ কি কি?

জেনারেটর
জেনারেটরে ঝুঁকি কি কি বয়লারের ঝুঁকি কি কি

জেনারেটরে ঝুঁকি কি কি?

অতিরিক্ত আওয়াজ,শব্দ দুষন হয়। ফলে জেনারেটর অপারেটরের কানের শ্রবন শক্তি লোপ পায়। .. ফফফফ
ডিজেল ঃ ডিজেল একটি দাহ্য পদার্থ। তাই এ থেকে যে কোন সময়ে দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

প্রতিরোধ ঃ জেনারেটর অপারেটর জেনারেটরটি ষ্টার্ট করার পূর্বে অবশ্যই ইয়ার মাফ ব্যবহার করিবেন। ফলে তিনি শব্দ দুষন থেকে রক্ষা পাবেন। জেনারেটরে ডিজেল ভরার সময় অবশ্যই সতর্কতা অবলম্বন করিবেন। যাহাতে ডিজেল ছড়িয়ে না পরে। ডিজেল নির্দিষ্ট স্থানে ও ব্যারেলে মওজুদ রাখিতে হইবে। জেনারেটর নিয়মিত সার্ভিসিং করিতে হইবে। জেনারেটর রুম সবসময় ধুমপান মুক্ত রাখিতে হইবে।

বয়লারের ঝুঁকি কি কি?

বয়লার মেশিন চালানোর ক্ষেত্রে একটি সুনির্দিষ্ট পদ্ধতি অনুসরণ করে থাকেন। বয়লার মেশিন চালানোর ক্ষেত্রে কর্তৃপক্ষ রক্ষণাবেক্ষণ বিভাগকে দায়িত্ব প্রদান করিয়াছেন। এক্ষেত্রে রক্ষণাবেক্ষণ ব্যবস্থাপক রক্ষণাবেক্ষণ বিভাগের বয়লার চালানোর সাথে সম্পৃক্তদেরকে এই পদ্ধতি সম্পর্কে অবহিত করে থাকেন।

১. মেইন গ্যাস বাল্ব আস্তে আস্তে খুলতে হবে।
২. গ্যাস প্রেসার ঠিক আছে কিনা তা প্রেসার গ্যাজ মিটারে চেক করে দেখতে হবে।
৩. বয়লারে পানি পরিমাণ মত আছে কিনা তা দেখে নিতে হবে। অর্থাৎ ডধঃবৎ খবাবষ ঈড়হঃৎড়ষষবৎ ঠিক মত কাজ করে কিনা চেক করতে হবে।
৪. সব কিছু ঠিক থাকলে বয়লার সুইচ দিয়ে চালু করতে হবে।
৫. ৮(আট) কেজি প্রেসার উঠার পর বয়লার অটোমেটিক বার্নার বন্ধ হয় কিনা তা দেখে নিতে হবে।
৬. বয়লার বন্ধ করার পর গ্যাস লাইনের মেইন বাল্ব বন্ধ করে রাখতে হবে।
৭. বয়লারের ভিতরের পানি এবং স্টীম কখনো একেবারে খালি করা যাবে না।

বয়লারের ঝুঁকি সমুহ-

আওয়াজ ঃ অতিরিক্ত আওয়াজে শব্দ দুষন হয়। ফলে বয়লার অপারেটরের কানের শ্রবন শক্তি লোপ পায়।

প্রতিরোধ ঃ বয়লার অপারেটর বয়লারটি ষ্টার্ট করার পূর্বে অবশ্যই ইয়ার মাফ ব্যবহার করিবেন। ফলে তিনি শব্দ দুষন থেকে রক্ষা পাবেন।

ফেটে যাওয়া ঃ অতিরিক্ত লোডের ফলে বয়লার যে কোন মূহুর্তে ফেটে মারাত্মক দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। তাই অতিরিক্ত লোড যেন না হয় সে দিকে দৃষ্টি রাখিতে হইবে।

প্রতিরোধ ঃ বয়লার নিয়মিত সার্ভিসিং করিতে হইবে। অতিরিক্ত লোড না দেওয়া,বয়লার অপারেটর সকল কর্মসময়ে নির্ধারিত পোষাক পরিধান এবং অবশ্যই ইয়ার মাফ ব্যবহার করা।

থ্রেড সাকার মেশিন

থ্রেড সাকার মেশিন ঝুঁকি কি কি?

আওয়াজ ঃ অতিরিক্ত আওয়াজে শব্দ দুষন হয়। ফলে থ্রেড সাকার মেশিন অপারেটরের কানের শ্রবন শক্তি লোপ পায়। আওয়াজ ৯০ডেসিবল এর উপরে থাকলে অবশ্যই ইয়ার মাফ ব্যবহার করিবেন

জোড়া তার ঃ মেশিনে জোড়া তার থাকলে যে কোন সময় মেশিন বিদ্যুৎতায়িত হয়ে মারাত্মক দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।

সুইচ ঃ মেশিনে সুইচ নড়েবড়ে অবস্থায় থাকলে যে কোন সময় মেশিন মারাত্মক দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। প্রতিদিন কাজ শেষে অপারেটররা অবশ্যই মেশিন পরিস্কার করবেন। তাছাড়া কাজ ছেড়ে কোথাও গেলে মেশিনের সুইচ অবশ্যই বন্ধ করে যাবেন।

প্রতিরোধ ঃ অপারেটর থ্রেড সাকার মেশিন চালু করিবার সময় অবশ্যই ইয়ার মাফ ব্যবহার করিবেন এবং পাশের শ্রমিকগনকেও ইয়ার মাফ/ইয়ার প্লাগ ব্যবহার করিতে হইবে। থ্রেড সাকার মেশিন নিয়মিত সার্ভিসিং করিবেন।

By Mashiur

He is Top Class Digital Marketing Expert in bd based on Google Yahoo Alexa Moz analytics reports.. He is certified IT Professional from Aptech, NCC, New Horizons & Post Graduated from London Metropolitan University (External) in ICT. Cell# +880 1792525354. যোগাযোগ এর জন্য নিম্নে Leave a Reply এ গিয়ে কমেন্টস Comments করুন

Leave a Reply