ফিনিশিং সেকশনের শ্রমিকগন কি কি নীতিমালার ভিত্তিতে কার্য করিবেন

ফিনিশিং সেকশনের শ্রমিকগন কি কি নীতিমালার ভিত্তিতে কার্য সম্পাদন করিবেন
ফিনিশিং সেকশনের শ্রমিকগন কি কি নীতিমালার ভিত্তিতে কার্য সম্পাদন করিবেন

ফিনিশিং সেকশনে র শ্রমিকগন

ফিনিশিং সেকশন র শ্রমিকগন কি কি নীতিমালার ভিত্তিতে কার্য সম্পাদন করিবেন। পন্য পরিবহনের জন্য নির্দিষ্ট গাড়ী কারখানা চত্ত্বরে প্রবেশ করলে সিকিউরিটি অফিসার গাড়ীর উভয় পার্শ্বের দেয়াল,ছাঁদ,মেঝে,নিচের অংশ ভাল করে পরীক্ষা করবেন।এবং নির্দিষ্ট রেজিষ্টারে লিপিবদ্ধ করবেন, গাড়ীতে কোন ত্র“টি পরিলক্ষিত হলে তৎক্ষনাত কর্তৃপক্ষকে অবহিত করতে হবে। এবং গাড়ী পরিবর্তনের জন্য নির্ধারিত পরিবহন সংস্থার নিকট ফেরৎ পাঠাতে হবে।পরীক্ষা নিরীক্ষার পর গাড়ীটি সম্পূর্ন ত্র“টিমুক্ত প্রতিয়মান হলে গাড়ীটি নির্ধারিত লোডিং এলাকায় পাঠাতে হবে এবং লোডিং এরিয়াতে  প্রয়োজনীয় নিরাপত্তা বেষ্টনী তৈরী করতে হবে। ফিনিশিং সেকশন র  সকল শ্রমিকগন  নিন্মলিখিত নীতিমালার ভিত্তিতে কার্য সম্পাদন করিবেন ঃ

  • প্রতিদিন নিজ কর্মস্থলে কারখানার নির্দিষ্ট সময়ে উপস্থিত হতে হবে।
  • কাজ শুরু করার পূর্বে হ্যান্ড নিডেল,কাটার, সিজার ইত্যাদি রেজিষ্ট্রারে এট্রি করে সুপারভাইজার থেকে বুঝে নিয়ে কাজ      করতে হবে।
  • কাজ শেষ করার পূর্বে সুপার ভাইজারকে এট্রি মোতাবেক হ্যান্ড নিডেল,সিজার, কাটার ইত্যাদি বুঝিয়ে দিতে হবে।
  • কাজ শেষে যদি কোন সিজার ও কাটার  না পাওয়া যায় সে ক্ষেত্রে খোজে দেখতে হবে, এর পরও যদি না পাওয়া যায়     সেক্ষেত্রে চুম্বক দিয়ে তা খুজে বের করতে হবে। এর পরও যদি না পাওয়া যায় সেক্ষেত্রে যে গার্মেন্ট এর কাজ করা     হয়েছে তাহা সম্পূর্ন মেটাল ডিক্টের এর মাধ্যমে চেক করে নিশ্চিত হতে হবে।
  • কাজ করার সময় কোন গার্মেন্ট এলোমেলো ভাবে রেখে জরুরী বর্হিগমন  পথের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করা যাবে না।
  • সর্বদা জরুরী বর্হিগমন পথ ও ফায়ার ইস্টিংগুইসার, জরুরী পানির লাইন, প্রাথমিক চিকিৎসা বাক্স ইত্যাদি প্রতিবন্ধকতা     মুক্ত রাখতে হবে।
  • সকল প্রকার ব্যক্তি গত নিরাপত্তা ব্যবহার করে কাজ করতে হবে।
  • সিজার,কাটার শক্ত রশি দিয়ে বেঁধে কাজ করতে হবে।
  • কর্মকালীন সময়ে সকল শ্রমিককে আইডি কার্ড প্রদর্শিত অবস্থায় কাজ করতে হবে।
  • টয়লেটের মধ্যে অযথা গল্প গুজব করে সময় নন্ট করা যাবে না।
  • শ্রমিকগন কর্মকালীন সময়ে এক বিভাগ হতে অন্য বিভাগে অযথা চলাফেরা করতে পারবেন না।
  • সর্বদা শৃংখলা বদ্ধ হয়ে কারখানার নিয়ম মেনে কর্ম সম্পাদন করতে হবে।
  • কোন প্রকার অভিযোগ অনূযোগ থাকলে তাহা রক্ষিত অভিযোগ বাক্সে ফেলতে পারবে, অথবা সরাসরি কমপ্লায়েন্স অফিসারের নিকট অভিযোগ করতে পারবে।
  • শ্রমিকগন এমন কোন উশৃংখল আচরন করতে পারবেন না যাহা কারখানার শৃংখলাহানী ও উৎপাদন কাজে ব্যাঘাত ঘটতে   পারে।
  • সকল সমস্যা  অংশগ্রহন কমিটির মাধ্যমে সমাধান করতে হবে।

By Mashiur

He is Top Class Digital Marketing Expert in bd based on Google Yahoo Alexa Moz analytics reports.. He is certified IT Professional from Aptech, NCC, New Horizons & Post Graduated from London Metropolitan University (External) in ICT. Cell# +880 1792525354. যোগাযোগ এর জন্য নিম্নে Leave a Reply এ গিয়ে কমেন্টস Comments করুন

4 comments

  1. what is environment risk in the garments factory ? what are they ?
    How can i make environment risk assessment for all sector in the garments ?

Leave a Reply